Blog

বিশ্ব ও বাংলাদেশ প্রেক্ষিত (সৃজনশীল প্রশ্ন ও সমাধান) : পাঠ -০৫

ict academy bd.3
এইচ.এস.সি.

বিশ্ব ও বাংলাদেশ প্রেক্ষিত (সৃজনশীল প্রশ্ন ও সমাধান) : পাঠ -০৫

প্রশ্ন-০৫: নিচের উদ্দীপকটি পড়ো এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত আমেরিকা প্রবাসী সালমান খানের একটি জনপ্রিয় অনলাইনভিত্তিক শিক্ষামূলক সাইট হলো www.khanacademy.org। নিজস্ব ওয়েবসাইট ও ইউটিউবের মাধ্যমে ৩১০০-এর বেশি বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ভিডিও টিউটোরিয়াল নির্মাণ করে খান একাডেমি। এ একাডেমির শিক্ষার্থীরা সংখ্যা লক্ষ লক্ষ। অনলাইনভিত্তিক ব্যবস্থায় শিক্ষার্থীরা ঘরে বসেই শিক্ষা পেতে পারে।

ক. ই-এডুকেশন কী?

খ. একটি ডিজিটাল ক্লাস তৈরি করার জন্য কী কী দরকার?

গ. খান একাডেমীর ওয়েবসাইটটির মতো বাংলায় এ রকম একটি সাইট তৈরি করার জন্য কী কী করার দরকার বিশ্লেষণ করো।

ঘ .শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের সুফল সম্পর্কে তোমার নিজস্ব মতামত ব্যক্ত করো।

উত্তরঃ

ক. ইন্টারনেট বা অলাইনের মাধ্যমে শিক্ষাদান পদ্ধতিকে ই-এডুকেশন বলে।

খ. ক্লাসরুমে ইন্টারনেট ও অন্যান্য আইসিটিনির্ভর যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে ‌‘ডিজিটাল ক্লাস’ তৈরি করার যায়। ক্লাসরুমে ছবি, অডিও-ভিডিও এনিমেশন ইত্যাদি ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষাকে আর আকর্ষণীয় করা যায়। ক্লাসে ইন্টারনেটের ব্যবহার সহজলভ্য করা এবং শিক্ষাদান প্রক্রিয়ায় ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার একটি ক্লাসকে অনেক কার্যকর করে তোলে। ই-বুক, প্রজেক্টর প্রভৃতির ব্যবহার ডিজিটাল ক্লাসে ব্যবহার করতে হবে।

গ. খান একাডেমীর ওয়েবসাইটটির মতো বাংলায় একটি ওয়েবসাইট চালু করতে হলে আমাদের আগে খান একাডেমি সম্পর্কে জানতে হবে। খান একাডেমী একটি শিক্ষমূলক ওয়েবসাইট যেটি অনলাইনভিত্তিক শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালিত করে। একাডেমির ওয়েবসাইটে বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ৩১০০টির বেশি ভিডিও টিউটোরিয়াল আছে। বিষয়গুলোর মধ্যে আছে বীজগণিত, পাটিগণিত, ইতিহাস, ব্যাংকিং পদার্থবিজ্ঞানসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা, ভেনচার ক্যাপিটাল, ক্রেডিক ক্রাইসিসের ওপর নানা বিষয়ে অসংখ্য ভিডিও থেকে খুব সহজেই যেকোনো সময় বিনা পয়সায় এ স্তরে ওয়েব সাইটটি ব্রাউজ করে তাদের প্রয়োজনীয় তথ্য জেনে নিতে পারে। খান একাডেমীর ভিডিও টিউটোলিয়ালগুলো ইউটিউবের সাথেও সংযুক্ত করা থাকে। খান একাডেমির ভিডিওগুলো বাংলা ভাষায় তৈরি করে আমরা আমাদের তৈরিকৃত ওয়েবসাইটে সংযোগজন করতে পারি। ফলে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা তাদের মাতৃভাষায় শিক্ষা লাভ করতে পারবেন। অর্থাৎ খান একাডেমির মতো বাংলায় একটি ওয়েবসাইট গড়ে তুলতে চাই তাহলে আমাদের উপরোক্ত বৈশিষ্ট্যগুলো বজায় রেখে ওয়েবসাইট গড়ে তুলতে হবে।

ঘ. শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তি এক অপার সম্ভাবনাময় জগৎ উন্মুক্ত করে দিয়েছে। প্রাথমিক শ্রেণিগুলোতে কার্টুন চিত্রের মাধ্যমে বর্ণ পরিচয়, গল্পের মাধ্যমে শিক্ষাদান, উচ্চারণ শেখা, প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে শিক্ষা ইত্যাদি প্রক্রিয়ায় কম্পিউটার ব্যবহার করা হয় ।ডিজিটাল কনটেন্ট -এর সাহায্যে স্থির ও চলমান চিত্রের সাহায্যে অত্যন্ত ফলপ্রসূভাবে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান উপস্থাপন করা যায়। প্রতিটি বিভাগের প্রতিটি ক্লাসের শিক্ষক ও ছাত্রের উপস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা, কর্মচারী কর্মকর্তাদের কাজ বন্টন করা, ক্লাস রুটিন ও পরীক্ষার রুটিন ইত্যাদি তৈরিতে কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়। বিভিন্ন ধরণের জটিল জটিল বিষয়ের সমাধান ইন্টারনেটের মাধ্যমে অতি সহজেই সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের যাবতীয় তথ্যাবলি কম্পিউটারের স্মৃতিতে মজুদ রাখা হয়। পরবর্তীতে প্রয়োজন অনুযায়ী স্মৃতি থেকে এ সমস্ত তথ্যাদি গ্রহণ করা হয়ে থাকে। নৈর্ব্যক্তিক বিষয়ের উত্তরপত্র কম্পিউটার সংযুক্ত OMR ডিজাইনের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয় এবং প্রাপ্ত নম্বর থেকে ফলাফল তৈরি করে তা ডেটাবেজ-এ সংরক্ষণ করা হয়। লাইব্রেরি ম্যানেজমেন্টেও কম্পিউটারের সাহায্যে করা যায়। তাছাড়া অনলাইনে পৃথিবীর বিখ্যাত বিখ্যাত লাইব্রেরি থেকে বই সংগ্রহ করা যায়। ই-ক্লাসরুমের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা নানা দেশের শিক্ষকের কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে।

Leave your thought here