ওয়েব ডিজাইন পরিচিতি এবং HTML (সৃজনশীল প্রশ্ন ও সমাধান) : পাঠ – ৩

ওয়েব ডিজাইন পরিচিতি এবং HTML (সৃজনশীল প্রশ্ন ও সমাধান) : পাঠ – ৩

প্রশ্ন-: নিচের উদ্দিপকটি পড় এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও:

সোহেলের ভাই শহীদ একটি বড় ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান চালান। তিনি তার প্রতিষ্ঠানের জন্য ওয়েবসাইট ইঞ্জিনিয়ার দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করে নেন।

ক. ইন্টারনেট কী?
খ. HTML ব্যাখ্যা কর।
গ. শহীদরে সাইটের সাধারণ গঠন বর্ণনা কর।
ঘ. শহীদের প্রতিষ্ঠান ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কী কী সুবিধা পাবে? ব্যাখ্যা কর।

উত্তর:

ক. ইন্টারনেট হলো সারা পৃথিবী জুড়ে বিস্তৃত, পরস্পরের সাথে সংযুক্ত অনেকগুলো নেটওয়ার্কের সমষ্টি যা সাধারণ জন্য উন্মুক্ত এবং যেখানে আইপি বা ইন্টারনেট প্রটোকল নামের এক প্রামাণ্য ব্যবস্থার মাধ্যমে ডেটা আদান-প্রদান করা হয়।

খ. HTML (Hyper Text Markup Language) এটি কতকগুলো TAG এর সমষ্টি যা একটি ওয়েবপেজ এর গঠন বর্ণনা করতে ব্যবহার করা হয়। TAG এর মাধ্যমে একটি ওয়েবপেজের বিভিন্ন অংশকে বিভিন্নভাবে Mark Up অর্থাৎ চিহ্নিত করা হয়। যেমন <i> This Text is italic</i>, এখানে <i> tag ব্যবহার করে অভ্যন্তরীণ লেখাটিকে Italic করা হয়েছে।

গ. শহীদ ইঞ্জিনিয়ার দিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নেয়। নিচে তার সাইটটির গঠন আলোচনা করা হলো। একটি ওয়েবসাইটের কাঠামো মূলত তিনটি ভাগে বিভক্ত থাকে। এগুলো হলো: হোম পেজ (Home Page), মূলধারা পেজ (Main Section) এবং উপধারা পেজ (Subsection)। প্রত্যেক ধারার পেজগুলোর মধ্যে থাকে সহজেই অন্য পেজ যাবার লিঙ্ক। ওয়েবসাইটের কাঠামোর সাথে একটি বাড়ির কাঠামোর সাখথ তুলনা করা যেতে পারে। যার মধ্যে হোম পেজ হলো বাড়ির ভিত্তি, মূলধারা পেজগুলো বাড়ির বাইরের দেয়াল এবং উপধারা পেজগুলো বাড়ির ভেতরের দেয়ালের মতো কাজ করে। একটি মজবুত বাড়ির জন্য যেমন এর ভিত্তি ও দেয়ালগুলো সুষ্ঠুভাবে নকশা করা প্রয়োজন, তেমনি একটি সফল ওয়েবসাইটের জন্য এর কাঠামো ব্যবহারকারীদের সঠিক ও সহজভাবে তথ্য পাবার নিশ্চয়তার কথা চিন্তা করে তৈরি করতে হবে।

ঘ. বর্তমান যুগে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেরই একটি ওয়েবসাইট থাকা একান্ত আবশ্যক। ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের সম্পূর্ণ পরিচিতি, ইতহাস, কার্যক্রম ব্যাখ্যা করা হয়। প্রতিষ্ঠানটির সাম্প্রতিক অবস্থা সরাসরি আপডেট করা হয়। আর ওয়েবসাইট ইন্টারনেটের মাধ্যমে সারা বিশ্বে প্রতিষ্ঠানের পরিচিতি ছড়িয়ে দেয়। তাই শহীদের প্রতিষ্ঠান ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সুবিধা পেতে পারে। বিশ্বের যেকোনো প্রান্তে বসে একজন ইচ্ছা করলেই ওয়েবসাইটে ঢুকে শহীদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করতে পারবে। ফলে প্রতিষ্ঠানের প্রচরণা বাড়বে। প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে পৃথিবীর সবদেশের অধিবাসী জানতে ও বুঝতে পারবে। কোনো প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠানটি মুখপাত্র হিসেবে কাজ করে। প্রতিষ্ঠানের কর্মরত বা প্রতিষ্ঠানটির গ্রাহকের কাছে অতি সহজে যেকোনো বার্তা পৌঁছাতে ওয়েবসাইটের বিকল্প নেই। ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ঘরে বসে একটি কম্পিউটার নিয়ে সারা পৃথিবীতে প্রতিষ্ঠানের বার্তা পৌঁছানো যায়। এখন ডিজিটাল যুগে অনেক কাজ কর্মই অনলাইন ভিত্তিক। আর অনলাইন ভিত্তিক কাজ কর্মের প্রথম শর্তই হলো সমৃদ্ধ ওয়েবসাইট থাকা। অনলাইনে ব্যংকিংয়ের মাধ্যমে ক্রেতা পণ্যের মূল্য পরিশোধ করে কাঙ্খিত পণ্য প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে পেতে পারে। ফলে প্রতিষ্ঠান ও গ্রাহক উভয়ই লাভবান হবে।
সুতরাং যেকোনো প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট খুব জরুরী।

No Comments

Post a Reply